করোনা নিয়ে মানুষের মধ্যে দুশ্চিন্তা বাড়ছে


মে ১০ ২০২০

বৈশ্বিক মহামারির কারণে সারাবিশ্ব কার্যত লকডাউন। করোনা ভাইরাসের বিস্তার পৃথিবীকে এক অনিশ্চিত অবস্থার মধ্যে ফেলে দিয়েছে। সে অনিশ্চয়তা থেকে বাদ যায়নি বাংলাদেশও। ক্রমান্বয়ে প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্ত সংখ্যা। ফলে স্বাভাবিকভাবেই দুশ্চিন্তা বাড়ছে সাধারণ মানুষের মধ্যে।

প্রতিনিয়ত সংবাদমাধ্যমে খবর প্রচার হচ্ছে, একে ঠেকানোর নানা চেষ্টা সত্ত্বেও বিভিন্ন দেশে অবিশ্বাস্য দ্রুতগতিতে এই ভাইরাস ছড়াচ্ছে। হাজারও লোক আক্রান্ত হচ্ছে প্রতিদিন। অনেকে মারা যাচ্ছে। একেকটি দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থা রোগীর চাপে ভেঙে পড়ছে। এসব খবর দেখে, শুনে এবং পড়ে মানুষের মনে তৈরি হয়েছে তীব্র উদ্বেগ।

এরসঙ্গে যোগ হয়েছে আবার টানা লকডাউন পরিস্থিতিতে ঘরবন্দি জীবন। একদিকে তারা যেতে পারছে না কাজে, অপরদিকে ঘরে থাকা সঞ্চিত অর্থ ইতোমধ্যে হয়ে গেছে নিঃশেষ। সঙ্গে করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় পিছু ছাড়ছে না শঙ্কা। এমন অবস্থায় পরিবার-পরিজন নিয়ে বেশ দুশ্চিন্তায় সাধারণ জনগণ।

এ বিষয়ে রাজধানীর বাংলামোটর এলাকার বাসিন্দা হাবিবুর রহমান বলেন, করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের জন্য ঘরের বাইরে বের হতে পারছি না। নেই কোনো কাজ। আরও কতদিন এভাবে কর্মহীন থাকতে হবে, তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছি। পরিবারের জন্যও দুশ্চিন্তা হয়। অর্থ সংস্থানের একটা ব্যবস্থা তো থাকতে হবে।

শনিবার (০২ মে) রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে এবং বেশকিছু মানুষের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দিন যত যাচ্ছে, তাদের মধ্যে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা ততই বাড়ছে।

আজিমপুর এলাকারা বাসিন্দা অলোকা বিশ্বাস বলেন, প্রতিদিন রাজধানীতে আক্রান্ত সংখ্যা বাড়ছে। এটা সত্যিই ভয়ের। খুব দরকার না হলে ঘরের বাইরে তো যাচ্ছিই না, আবার যেতেও ভয় কাজ করছে। না জানি কোথা থেকে কী হয়ে যায়। আর তার সঙ্গে দেশের পরিস্থিতি মিলে একটা উদ্বেগের মধ্যে দিয়েই দিন কাটে।

এদিকে, করোনা ভাইরাসের কারণে পুরো বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও মানুষকে ঘরে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সে কারণে দীর্ঘ এক মাসের বেশি সময় হলো ঘরবন্দি রয়েছে সাধারণ মানুষ। আর এর প্রভাব তাদের মানসিকতার ওপরও বেশ প্রভাব ফেলছে বলে মনে করছেন অনেকে।

এ বিষয়ে ধানমন্ডি এলাকার বাসিন্দা সাকিবুর রহমান বলেন, এই পরিস্থিতির এক গভীর প্রভাব পড়ছে মানুষের মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর। বিশেষ করে যাদের আগে থেকেই দুশ্চিন্তা এবং শুচিবাইয়ের মতো মানসিক সমস্যা আছে, তাদের জন্য এ পরিস্থিতি আরও গুরুতর সমস্যা তৈরি করতে পারে।

এই উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা কাটিয়ে খুব শিগগির চেনা পরিবেশে ফিরতে চায় মানুষ। তাই তো নিয়মিত প্রিয় মানুষদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখা, সময়টাকে কাজে লাগিয়ে নানা রকম ফেলে রাখা কাজ সেরে ফেলা অথবা অনেক দিন ধরে যে বইটা পড়া হয়নি, তা পড়ার মধ্যে দিয়েই এখন দিন পার করছেন সবাই।

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস

সর্বমোট

আক্রান্ত
২৬৬,৪৪৫
সুস্থ
১৫৩,০৮৬
মৃত্যু
৩,৫১৩

সর্বশেষ

আক্রান্ত
২,৯৯৫
সুস্থ
১,১১৭
মৃত্যু
৪২
সূত্র: আইইডিসিআর

ভাষা সৈনিক চিকিৎসক

নিউজ

মুক্তমত

সংগঠন

হাসপাতাল